হবিগঞ্জের কারাগারে সুশান্ত, লন্ডনে চোখের জল লুকোচ্ছেন তার স্ত্রী-সন্তানেরা!। আইসিটি নিউজ

অপরাধ ও দুর্নীতি আইসিটি সংবাদ রাজনীতি

আইসিটি নিউজ: নিউজ ডেস্ক:

এ বছরেরই ১১ মার্চ ছিল হবিগঞ্জে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে আটক সাংবাদিক সুশান্ত দাশগুপ্তের বিয়ে বার্ষিকী। সেই দিন তিনি লন্ডনেই ছিলেন। ওইদিন তার লন্ডনের বাসায় আয়োজন করা হয়েছিল বিয়ে বার্ষিকীর এক অনাড়ম্বর কিন্তু আনন্দঘন আয়োজন। সেদিন সুশান্ত দাশগুপ্ত, তার স্ত্রী মৌসুমি দাশগুপ্ত, দুই সন্তান স্নেহিতা আর মিহিতা দারুণ উপভোগ করেছিলেন ঘরোয়া বিয়ে বার্ষিকীর আয়োজন। পরদিনই সুশান্ত চলে আসেন বাংলাদেশে, হবিগঞ্জে!

লন্ডনে দুই সন্তান, স্নেহিতা আর মিহিতার স্কুল, পড়াশোনা, সংসার নিয়ে ব্যস্ত থাকেন মৌসুমি। আর হবিগঞ্জে নিজের দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদনা প্রকাশনা, সমাজকর্ম ও রাজনীতি নিয়ে ব্যস্ত সময় কাটান এক সময়ের তুখোড় ছাত্রলীগ নেতা সুশান্ত। এই ভয়ঙ্কর করোনাকালেই আলোর মুখ দেখে তার দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা। বেরিয়েই হিট! অপরাজনীতি, অপসাংবাদিকতা ও লুটপাট ভাগবাটোয়ারার খবর প্রকাশ পাওয়ায় মানুষ যখন সুশান্তের সাহসী ভূমিকার প্রশংসায় মুখর, তখন এক এমপি প্রমাদ গুনলেন; সুশান্ত আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তার আসনেই আওয়ামীলীগের প্রার্থী হওয়ার চেষ্টা করছে না তো! যেই ভাবনা, সেই কাজ; গৃহপালিত হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সায়েদুজ্জামান জাহিরকে দিয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে হবিগঞ্জ সদর থানায় মামলা করালেন। ওই মামলায় প্রধান আসামী করা হয় দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক প্রকাশক সুশান্ত দাশগুপ্তকে। ওই মামলাতে আরও আসামি করা হয় দৈনিক আমার হবিগঞ্জের নির্বাহী সম্পাদক নুরুজ্জামান মানিক, বার্তা সম্পাদক রায়হানউদ্দিন সুমন, চিফ রিপোর্টার তারেক হাবিবসহ অজ্ঞাত পরিচয়ের আরও কয়েকজনকে। সাক্ষী করা হয় অন্যান্যের মধ্যে হবিগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি ইসমাইল হোসেনকেও। গভীর রাতে মামলা, সকাল হতে না হতেই গ্রেফতার হয়ে যান সুশান্ত। তাকে দ্রুততার সাথেই ঢুকিয়ে দেওয়া হয় হবিগঞ্জ জেলা কারাগারে। সুশান্ত রয়েছেন সেই কারাগারেই।

১২ মার্চ লন্ডন থেকে দেশে ফেরার সময় সুশান্ত দাশগুপ্ত স্ত্রী ও সন্তানদের চোখের জল মুছিয়ে দিতে দিতে বলেছিলেন, এই তো তিনি আবার দ্রুতই লন্ডনে হাজির হবেন! স্নেহিতা আর মিহিতার পীড়াপীড়িতে সুশান্ত কথাও দিয়ে এসেছিলেন, ৯ জুনের মধ্যেই তিনি লন্ডন হাজির হবেন। কিন্তু দেশে এসে এমন জটিলতায় পড়বেন, সেটা কী আর জানা ছিল সুশান্তের! লন্ডনে সুশান্তের স্ত্রী মৌসুমি, দুই সন্তান স্নেহিতা আর মিহিতার সাথে ওই বিয়ে বার্ষিকীর ছবিগুলোই যেন এখন কথা বলে! হবিগঞ্জের দুই আদালত সুশান্তের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেছেন! এখন ভরসা হাইকোর্ট! হবিগঞ্জের মামলা সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র আদালত থেকে বের করে নেওয়া হবে ঢাকায়। তারপর জামিন আবেদন জমা পড়বে হাইকোর্টে। কতোদিনে হাইকোর্টে জমা পড়বে, কতোদিনে সুশান্ত জামিনে মুক্ত হয়ে লন্ডনে আসবেন, এই দুশ্চিন্তা নিয়েই সময় কাটছে মৌসুমি ও তার দুই অবুঝ সন্তানের! ওরা তিনজনই চোখের জল লুকোচ্ছেন, একে অপরের কাছ থেকে! এমন কঠিন সময়ের কথা ওরা তো কখনো কল্পনাও করতে পারেনি!

 

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *