মৌলভীবাজার খলিলপুর ইউনিয়নে গৃহবধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা। আইসিটি নিউজ

অপরাধ ও দুর্নীতি

আইসিটি নিউজ: মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: 

মৌলভীবাজার সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের হলিমপুর (বার বাউয়া) ৯ নং ওয়ার্ডের  গৃহবধূ ফাতিমা বাবর লিজা (২৫) আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে বলে জানায় শেরপুৃর পুলিশ ফাঁড়ির প্রশাসন।
৩০ মে (শনিবার) সকাল ৯টার দিকে গৃহবধুর শয়নকক্ষে ঘটনাটি ঘটে।
পুলিশ সূত্রে জানা যায়, মৌলভীবাজার সদর উপজেলার খলিলপুর ইউনিয়নের হলিমপুর (বার বাউয়া) গ্রামের ইতালী প্রবাসী মোস্তফা (৪০ )স্ত্রী ফাতিমা বাবর লিজা (২৫) আত্মহত্যা করে।
ঘটনা সূত্রে জানা যায় তাদের ৬ বছরের কন্যা সাহারা পুলিশের এক সাক্ষাৎকারে জানায়-
আজ শনিবার সকালে একটি মটু ফোন থেকে ফাতিমা বাবর লিজা (২৫) এর সাথে মোবাইলে ফোনে এক ব্যক্তির সাথে কথোপকথন বাক্য বিনিময় হয়।
মোবাইলে কথা বলার এক পর্যায়ে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে তার শয়ন কক্ষে সিলিং ফ্যানের সাথে ওড়না দিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।
ফাঁস লাগানোর পর লিজা ছটফট করতে থাকে।
তখন তার ছয় বছরের কন্যা সাহারা চিৎকার শুরু করে।
তার চিৎকার শুনে অন্য কক্ষে থাকা পরিবারের লোকজন ছুটে আসেন। তারা এসে দেখতে পান লিজার নিথর দেহ সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলছে।
এ বিষয়টি মডেল থানা নিয়ন্ত্রিত শেরপুর ফাঁড়ির পুলিশ ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান অরবিন্দ পোদ্দার বাচ্চু ও ৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ইলিয়াছুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ইউপি সদস্য ইলিয়াসুর রহমান উপস্থিত সাংবাদিকদের জানান- ঘটনা যেভাবেই ঘটেনা কেন খুবই দুঃখজনক ,আমরা এ ব্যাপারে তার সঠিক কোন তথ্য পাইনি ।
অন্যদিকে মডেল থানার ওসি আলমগীর হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
ঘটনাস্থল থেকে দুপুর একটার দিকে মৃতদেহ উদ্ধার করে পরে ময়না তদন্তের জন্য লাশ মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।
শেরপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই সাব্বির আহসান বলেন মোবাইল ফোনের আলাপ-আলোচনার কারণে হয়তো গৃহবধুর আত্মহত্যার ঘটনাটি ঘটে ।
ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।
এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা রেকর্ড করা হয়েছে।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *